থাই খুদে ফুটবলারদের খবর নিয়ে বিদেশি মিডিয়ার অনধিকার চর্চা!

দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে গুহার ভেতর অাটকে থাকার পর ‘অলৌকিকভাবে’ উদ্ধার হওয়া থাই খুদে ফুটবলারদের সাক্ষাৎকার নিয়ে বিদেশি গণমাধ্যমগুলো দায়িত্বজ্ঞানহীনতার পরিচয় দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে থাইল্যান্ড কর্তৃপক্ষ।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে থাইল্যান্ডের বিচার বিভাগের উপ সচিব তাওয়াচাই থাইকো বলেন, আমি অত্যন্ত ব্যথিত হয়েছি যে, আমরা শিশুদের অধিকারের বিষয়গুলো অত্যন্ত যত্নসহকারে উপলব্ধি করছি; শিশু এবং নাবালকদের অধিকার রক্ষার চেষ্টা করছি, অথচ তাদের (বিদেশি গণমাধ্যমের) মান এ ব্যাপারে একেবারে নিকৃষ্ট।

তিনি আরো বলেন, থাই কর্তৃপক্ষ সেই শিশুদের সঙ্গে কথোপকথনের ক্ষেত্রে মনোবিদের যে নির্দেশনা মেনে চলেছে, সে ধরনের নির্দেশনা বিদেশি গণমাধ্যমেরও মেনে চলা উচিত। শিশুদের মনে আঘাত লাগে এ ধরনের প্রশ্ন করা থেকে বিরত থাকা উচিত এবং তারা একেবারে ভঙ্গুর অবস্থার মধ্যে রয়েছে; এ ধরনের অবস্থা থেকে শিশুদের বের করে নিয়ে আসার চেষ্টা করতে হবে বলেও মনে করেন তিনি।

এর আগে ওয়াইল্ড বোয়ার্সের সদস্যরা হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরপরই থাই কর্তৃপক্ষ সাংবাদিকদের জানিয়ে দেয়, শিশুদের সঙ্গে কথা বলার সময় এমন কোনো বিষয়ে জানতে চাওয়া যাবে না, যাতে করে তাদের মনে ভীতির সঞ্চার হয়। খুদে ফুটবলারদের যেন গুহার ভেতরের ভয়াবহতা স্মরণ করিয়ে দেওয়া না হয়, সে ব্যাপারে দেশের এবং দেশের বাইরের সাংবাদিকদের নির্দেশনা দেওয়া হয়।

কিন্তু বিদেশি কিছু গণমাধ্যমের সাংবাদিকরা ওই খুদে ফুটবলারদের বাড়ি গিয়ে নানা বিষয়ে প্রশ্ন করে সংবাদ প্রকাশ করে। তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে শনিবার এক বিবৃতি দেওয়া হয়েছে চিয়াং রাই প্রদেশ থেকে। তাতে বলা হয়েছে, ওই খুদে ফুটবলারদের অধিকার সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা জরুরি।

এছাড়া বলা হয়েছে, শিশুদের অধিকার লঙ্ঘন করলে এক হাজার আটশ ডলার জরিমানা অথবা ছয় মাসের কারাদণ্ড কিংবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করা হতে পারে।